Sunday , April 22 2018
Breaking News
Home / জাতীয় / কী ঘটেছিল নারায়ণগঞ্জে

কী ঘটেছিল নারায়ণগঞ্জে

বিল্লাল হোসেন রবিন: নারায়ণগঞ্জ শহরে হকার ইস্যুকে কেন্দ্র করে সিটি মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী ও এমপি শামীম ওসমান সমর্থকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। ঘণ্টাব্যাপী বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল, গুলি বর্ষণ এবং দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় রণক্ষেত্রে পরিণত হয় শহরের চাষাঢ়া এলাকা। শামীম ওসমান সমর্থকদের হামলায় মেয়র আইভী আহত হয়ে রাস্তায় বসে পড়েন। এ সময় তার সমর্থকরা মানবঢাল তৈরি করে চারপাশ থেকে তাকে ঘিরে রাখে। বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল ও গুলিবর্ষণ হলেও আইভী রাস্তা ছেড়ে যাননি। এ সময় কয়েকজন সাংবাদিকসহ উভয় পক্ষের শতাধিক আহত হয়েছেন।

সংঘর্ষ চলাকালে বিপুল সংখ্যক পুলিশ উপস্থিতি থাকলেও সংঘর্ষ থামাতে তারা ব্যর্থ হন। সংঘর্ষের সময় শহরের দোকান পাট, বিপণি বিতান বন্ধ হয়ে যায়। আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে পুরো শহরে। বন্ধ হয়ে যায় সকল যানবাহন চলাচল। মঙ্গলবার বিকালে এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের পর বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও র‌্যাব শহরে জলকামানসহ টহল দেয় ও গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অবস্থান নেয়। দীর্ঘদিন থেকে এই দুই নেতা মুখোমুখি অবস্থানে ছিলেন বক্তব্য বিবৃতির মাধ্যমে। গতকালের সংঘর্ষের ঘটনায় তাদের বিরোধ মাঠে গড়িয়েছে। পুরো শহরে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। চরম উত্তেজনা রয়েছে উভয় শিবিরে।

এদিকে হামলার জন্য নাসিক মেয়র এমপি শামীম ওসমানকে সরাসির দায়ী করে বলেন, তাকে হত্যার উদ্দেশেই শামীম ওসমানের নির্দেশে তার ক্যাডার বাহিনী হামলা চালিয়েছে। তিনি বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে জানাবেন। প্রশাসনের নীরব ভূমিকার কারণে ডিসি ও এসপির প্রত্যাহার দাবি করেছেন তিনি।

অপরদিকে শামীম ওসমান বলেন, আমি দেখেছি বিএনপির মার্ডার কেসের আসামি ও আসামির ভাইয়েরা সব আজকে নারায়ণগঞ্জে মেয়রের মিছিলে সমাবেশ করে নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে।

ওদিকে নাসিক মেয়র আইভীর প্রেস বিফ্রিং শেষে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাব থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর হকাররা শহরে মিছিল বের করে আইভীর বিরুদ্ধে নানা স্লোগান দেয়। একপর্যায়ে তারা প্রেস ক্লাবের নিচে আগুন ধরিয়ে দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে দ্রুত আগুন নিভিয়ে ফেলে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বিকাল ৪টার পর শহরের চাষাড়া শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে অবস্থান নেয় শামীম ওসমানের সমর্থক নিয়াজুল, মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক শাহ নিজাম, শহর যুবলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সাজনু, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাফায়েত আলম সানি, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি জুয়েল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ দুলালের নেতৃত্বে অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী।

এদিকে সোমবার শামীম ওসমানের ঘোষণার প্রতিক্রিয়ায় নগর ভবনে মঙ্গলবার বিকাল ৩টায় আইভী প্রেস ব্রিফিং করবেন এই খবরে বিপুল সংখ্যক মিডিয়াকর্মী সেখানে উপস্থিত হন। বেলা সাড়ে ৩টা পর্যন্ত কয়েক হাজার আইভীর সমর্থক নগরভবনের সামনে জড়ো হয়। পরে আইভী সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করে বিকাল ৪টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে উপস্থিত হয়ে প্রেস বিফ্রিং করার কথা জানান। পরে বিকাল ৪টায় নগরভবন থেকে বেরিয়ে আইভী তার সমর্থকদের নিয়ে পায়ে হেঁটে রওনা হন। ফুটপাথ ধরে প্রায় দুই কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে শহরের চাষাড়া সায়েম প্লাজার সামনে উপস্থিত হন আইভী। এ সময় আকস্মিকভাবে শহীদ মিনার থেকে শামীম ওসমানের সমর্থকরা হামলা চালায় আইভীর ওপর।শামীম ওসমানের সমর্থকদের সঙ্গে যোগ দেন শহরের উচ্ছেদকৃত বিপুল সংখ্যক হকার। একপর্যায়ে নিয়াজুল অস্ত্র উঁচিয়ে আইভীর দিকে তেড়ে যান। তখন আইভীর সমর্থকরা নিয়াজুলকে গণপিটুনি দিলে দৌড়ে পালিয়ে যান। পরে পাল্টা ধাওয়া দিলে শুরু হয় সংঘর্ষ। দফায় দফায় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলতে থাকে। এ সময় ইটের আঘাতে আহত হয়ে সড়কের ওপর বসে পড়েন আইভী। একপর্যায়ে আইভীর সমর্থকরা চারপাশ থেকে মানবঢাল তৈরি করে আইভীকে চারপাশ থেকে ঘিরে রাখেন। বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল ও গুলি বর্ষণ হলেও আইভী তার জায়গা থেকে নড়তে রাজি হননি। স্টিল দাঁড়িয়ে থাকেন মানবঢালের ভেতর।

এক সময় শামীম সমর্থকরা যখন মানবঢালের একেভারে সামনে এসে হামলা করে তখন পুলিশ ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে শামীম সমর্থকদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এদিকে আইভীকে রক্ষা করতে গিয়ে এবং হামলায় আইভীর বডিগার্ড কনস্টেবল শফিকুল ইসলাম, নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সেক্রেটারি শরীফুদ্দিন সবুজ, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সুফিয়ান, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য শহীদুল্লাহ, শহর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আহাম্মদ আলী রেজা উজ্জ্বল, নাসিক কাউন্সিলর শাওন অংকন, যুবলীগ নেতা হিমেল খান, সুজন, জুবায়েদ, মো. রব মিয়া, আব্দুল কাউয়ুম, কবির টিটু, আহসান হাবু, মন্টি, মো. ইমন, জুম্মন খন্দকার, মো. রাসেল মিয়া, সাংবাদিক ওয়ারদী রহমান, রিপন মাহমুদ, ফটো সাংবাদিক তাপস সাহা, সবুজসহ কমপক্ষে অর্ধ শতাধিক আহত হন। তাদের নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা মারাত্মক।

অপরদিকে শামীম ওসমন সমর্থকদের মধ্যে নিয়াজুল ও স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা জুয়েল হোসেনসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। তাদের নারায়ণগঞ্জ ৩০০ শয্যা হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এদিকে ঘণ্টাব্যাপী ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের পর সন্ধ্যা পৌনে ৬টার দিকে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিতে থাকে। এবং ধীরে ধীরে শহরে যানবাহন চলাচল শুরু করে। কিন্তু আতঙ্কে শহরের সকল মার্কেট বন্ধ থাকে। এদিকে সার্ভিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে শহরে জলকামান সহ পুলিশ ও র‌্যাব টহল শুরু করেছে। এবং গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশের বক্তব্য

এদিকে আইভীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে পুলিশের নীরব ভূমিকার ব্যাপারে জানতে চাইলে জেলা পুলিশ সুপার মইনুল হক বলেন, আমরা ঘটনাস্থলের মাঝখানে থেকে উভয় পক্ষকে নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেছি। জানমালের নিরাপত্তা দিতে চেষ্টা করেছি। আইভী অভিযোগ করেছেন, শামীম ওসমানের প্রতি আপনারা সহানুভূতিশীল ছিলেন, এর জবাবে পুলিশ সুপার বলেন, আমাদের লক্ষ্য ছিল জানমালের নিরাপত্তা দেয়া।

শামীম ওসমানের নির্দেশে আমাকে হত্যা করতেই এই হামলা : আইভী

ঘটনার পর নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে আইভী বলেন, শামীম ওসমানের নির্দেশে তার ক্যাডার বাহিনী হত্যার উদ্দেশে আমার ওপর সশস্ত্র হামলা চালিয়েছে। আমার নিরস্ত্র নিরীহ কর্মীদের ওপর বৃষ্টির মত ইট-পাটকেল ও গুলি বর্ষণ করেছে। এতে সাংবাদিকসহ আমার অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে। ‘আমি মৃত্যুকে ভয় করি না। আমি নগর ভবন থেকে শান্তিপূর্ণভাবে হেঁটে আসছিলাম। শহরের বঙ্গবন্ধু সড়কের চাষাড়া সায়েম প্লাজার সামনে আসা মাত্র শামীম ওসমানের ক্যাডার নিয়াজুল পিস্তল উঁচিয়ে গুলি করে। আমার নেতাকর্মীরা মার খেয়ে আহত হয়ে এক ঘণ্টার মতো আমাকে নিরাপত্তা বলয় তৈরি করে ঘিরে রাখলেও পুলিশ সম্পূর্ণ নীরব ভূমিকা পালন করেছে। তাহলে পুলিশ প্রশাসন কি চেয়েছে। আমাকে হত্যা করা হোক। তারপর আমার লাশ পৌঁছে দিবে?

চাষাঢ়ার রাইফেলস ক্লাবে বসে শামীম ওসমান আমার ওপর হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়েছেন। নির্দেশ পেয়ে তার লোকজন ইটপাটকেল ছোড়ে। এটা নিরস্ত্র লোকের ওপর সশস্ত্র হামলা। এ হামলায় আমি এবং সাংবাদিকসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

হামলার সময় প্রশাসনের নিষ্ক্রিয় ভূমিকার অভিযোগ এনে আইভী জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের প্রত্যাহার দাবি করেছেন। তিনি বলেন, প্রকাশ্যে এক ঘণ্টা আমার ওপর সশস্ত্র হামলা করা হলো। আমাকে রক্ষা করার জন্য নেতাকর্মীরা নিরাপত্তা বলয় তৈরি করে মার খাচ্ছিল এবং একে একে তারা আহত হচ্ছিল, আমি আহত হলাম। সাংবাদিক আহত হলো, অসংখ্য নেতাকর্মী ও সাধারণ মানুষ আহত হলো অথচ পুলিশ নীরব ভূমিকা পালন করলো। এটা মেনে নেয়া যায় না। শুধু তাই নয়, এজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, তাও আবার ক্ষমতাসীন দলের মেয়র রাস্তায় মার খাচ্ছে পুলিশ দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখছে। কাদের ঈশারায় প্রশাসন এমন ভূমিকা পালন করেছে। আমি ডিসি ও এসপির প্রত্যাহার দাবি করছি।

হামলা ও সংঘর্ষের পর নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবে গিয়ে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন। আইভীর প্রেস ব্রিফিং শেষ হওয়ার পর সন্ধ্যা ৬টা দিকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) মতিয়ার রহমান প্রেস ক্লাবে গিয়ে আইভীর সঙ্গে দেখা করতে গেলে উত্তেজনা দেখা দেয়।

শামীম ওসমান

এদিকে সংঘর্ষের পর চাষাঢ়া মার্ক টাওয়ারের সামনে হকারদের উদ্দেশে শামীম ওসমান বলেন, এটা রাজনৈতিক সংগ্রাম না। হকাররা গরিব মানুষ, তারা রাস্তায় চেয়েছে। যারা হকারদের ওপর হামলা করেছে, যারা হকারদের মাথার রক্ত ঝরিয়েছে তাদের বিচার আল্লাহ করবে। নারায়ণগঞ্জ অশান্ত করার সুযোগ কাউকে দেবো না। আমি দেখেছি অনেক বিএনপির ক্যাডার আজ মাঠে আছে। আমি দেখেছি বিএনপির মার্ডার কেসের আসামি ও আসামির ভাইয়েরা সব আজকে নারায়ণগঞ্জে মেয়রের মিছিলে সমাবেশ করে নারায়ণগঞ্জকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। মেয়র বোকামি করতে পারে কিন্তু আমি করবো না। এটা কোনো রাজনৈতিক সংগ্রাম না, হইচই না। হকাররা বসবে কি বসবে না- এটা জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার সবাই মিলে ঠিক করবে। বিকল্প ব্যবস্থা না দেয়া পর্যন্ত হকার আছে এবং হকার বসবে। আপনারা আমাকে একটু সাহায্য করতে চান? ওদেরকে দেখার জন্য আমি একলাই পারি, আপনাদের লাগবে না আমার। দয়া করে আপনারা একটু পেছনে যান। আমি একা দেখি কার কতটুকু সাহস আছে। আমি একটু দেখতে চাই কার কতটুকু ক্ষমতা হইছে।

যে কারণে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়: গত ২৫শে ডিসেম্বর থেকে নারায়ণঞ্জ শহরের ফুটপাথ হকারমুক্ত করা হয়। এরপর উচ্ছেদ হওয়া হকাররা আন্দোলনে নামে। তারা নাসিক মেয়র, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার সবার কাছে গিয়েছেন। কোনো সাড়া পাননি। মেয়র পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন কোনো অবস্থাতেই নগরবাসীর দুর্ভোগ সৃষ্টি করে ফুটপাথে হকার বসতে দেয়া হবে না। এক পর্যায়ে সোমবার বিকালে শহরের পৌর মার্কেটের সামনে সমাবেশ করে হকাররা। সমাবেশে শামীম ওসমান বলেন, এখন বাজে সাড়ে চারটা। আমার প্রিয় হকার ভাইদের বলছি, আগামীকাল (গতকাল মঙ্গলবার) বিকাল সাড়ে ৪টা থেকে নারায়ণগঞ্জে আবার হকার বসবে। এটা কোনো অনুরোধ নয়, সুপারিশ নয়, এটা এমপি শামীম ওসমানের নির্দেশ। আগামীকাল (গতকাল) থেকে আবার আমার হকার ভাইয়েরা এই নারায়ণগঞ্জে ব্যবসা করবে। কোন প্রশাসন অথবা যেকেউ যদি আমার এই হকার ভাইবোনদের গায়ে হাত দেয় সেটা আমি শামীম ওসমান দেখবো।

শামীম ওসমান বলেন, কোনো বিকল্প ব্যবস্থা না দিয়া যদি কেউ মনে করেন নারায়ণগঞ্জে হকার উঠাইয়া দেবেন, পারবেন। অবশ্যই পারবেন। শামীম ওসমানের মৃত্যুর পর, তার আগে পারবেন না। আমি আমার নেতাকর্মী যারা আছেন, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ সবাইকে নির্দেশ দিয়া দিলাম, যদি কোনো মাস্তান, কোনো ব্যক্তি হকারদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করতে আসে তাদের প্রতিরোধ করবেন। বাকিটা আমি দেখবো।

শামীম ওসমান বলেন, আমি নারায়ণগঞ্জের প্রশাসনের উদ্দেশে বলতে চাই, আমি নারায়ণগঞ্জের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপদেষ্টা হিসেবে বলতে চাই, আগামীকাল (গতকাল) বিকাল সাড়ে চারটা থেকে আমি শহীদ মিনারের সামনে বসবো। এই হকাররা আমার ভাই, আমার বন্ধু, আমার পরিবার। লাঠিতো দূরের কথা একজন পুলিশ সদস্য একটা গালিও যেন না দেয় হকারদেরকে। এটা শামীম ওসমানের নির্দেশ, কোনো আদেশ না, হুকুম না, কোনো রকম খাতির না। জনগণকে নিয়ে রাজনীতি করি জনগণকে নিয়েই থাকবো।

শামীম ওসমানের এই নির্দেশ ও ঘোষণার পর নাসিক মেয়র মঙ্গলবার প্রেস ব্রিফিং করার ঘোষণা দেন। এই খবরে বিপুলসংখ্যক সাংবাদিক ও কয়েক হাজার আইভীর সমর্থক নগরভবনের সামনে উপস্থিত হয়। পরে আইভী তাদের নিয়ে বিকাল ৪টায় নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের উদ্দেশে রওয়ানা হন। সূত্র: মানবজমিন

Loading...